রিফাত হ.. ত্যা র দায় স্বীকার করল ২ জন, ৩ জন রিমান্ডে

1783

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হ.. কাণ্ডে দুই অভিযুক্ত আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। সোমবার বিকেলে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর কাছে স্বেচ্ছায় তারা এ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

আদালতে স্বীকারোক্তি দেয়া দুজন হলো এ মামলার এজাহারভুক্ত ১১ নম্বর আসামি অলি ও ভিডিও ফুটেজ দেখে শনাক্ত করা অভিযুক্ত তানভীর। পরে আদালত তাদের জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এছাড়াও এ হ.. কাণ্ডে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার হয়ে তিনদিন রি মা ন্ড শেষে নাজমুল হাসানকে একই আদালতে হাজির করে পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। পরে আদালত তার পাঁচদিনেরই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

সাগর ও সাইমুন নামের অপর দুজনকে পুলিশ পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করলে বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী তাদের পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আদালত এ আদেশ দেন। আদেশ শুনে আদালত প্রাঙ্গণে থাকা রিফাত শরীফ হ..কাণ্ডে অভিযুক্তদের স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন।

এ বিষয়ে রিফাত শরীফ হ.. ত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বরগুনা সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) হুমায়ুন কবির বলেন, রিফাত শরীফ হ.. ত্যা মামলার ১১ নম্বর আসামি অলি ও হ.. কাণ্ডেরর ভিডিও ফুটেজ দেখে গ্রেফতার তানভীর আদালতে রিফাত শরীফ হ.. কাণ্ডে সরাসরি অংশ নেয়ার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে।

এছাড়া এ হ.. কাণ্ডে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার করা সাগর, সাইমুন ও নাজমুল আহসানকে পাঁচদিনের রিমান্ড চাইলে আদালত তাদের প্রত্যেকের পাঁচদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এদের মধ্যে নাজমুল আহসান আগেও তিনদিনের রিমান্ডে ছিল। তিনদিনের রি মা ন্ড শেষে আজ আবারও তার পাঁচদিনের রি মা ন্ডের আবেদন করা হয়।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, এ মামলার ১২ নম্বর আসামি টিকটক হৃদয় গ্রেফতার হলেও সে বরগুনা জেলা পুলিশের কাছে পৌঁছায়নি। তাই তাকে আদালতে তোলা সম্ভব হয়নি।

‘ইমান’ রক্ষায় অভিনয় ছাড়লেন বলিউড অভিনেত্রী

বলিউড সুপারস্টার আমির খানের ‘দঙ্গল’ সিনেমায় অভিনয় করে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পান মুসলিম অভিনেত্রী জায়রা ওয়াসিম। তারপর একের পর এক ছবির অফার আসতে থাকে তার কাছে। গত মার্চে প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার সঙ্গে তার ছবি ‘দ্য স্কাই ইন পিঙ্ক’-এর শুটিংও শেষ হয়েছে। সেরা অভিনেত্রী হিসেবে ভারতের প্রেস্টিজিয়াস ‘ফিল্ম ফেয়ার অ্যাওয়ার্ড’সহ কয়েকটি পুরস্কার লাভ করেছেন। ১৮ বছরের জায়রা পাঁচ বছরের ফিল্ম ক্যারিয়ারের পাঠ চুকিয়ে অভিনয়কে বিদায় জানালেন। ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্টে এসে রূপালি পর্দার আলো ঝলমলে জগত্ ছাড়ার এমন সাহসী ঘোষণায় অবাক গোটা বলিউড।

‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’ এবং ‘ইন্ডিয়া টুডে’র খবরে বলা হয়, ধর্মভীরু জায়রা জানিয়েছেন, অভিনয় ক্যারিয়ার তার বিশ্বাস এবং ধর্মের মাঝখানে এসে দাঁড়িয়েছে। ইসলামে এই ধরনের অভিনয় হারাম। অভিনয় ছাড়ার কারণ জানিয়ে গতকাল রবিবার জায়রা ওয়াসিম তার ভেরিফাইড ইন্সটাগ্রাম, ফেসবুক ও টুইটারে লিখেছেন, ‘পাঁচ বছর আগে নেওয়া সিদ্ধান্ত আমার জীবনকে বদলে দিয়েছিল। বলিউডে পা রাখার পর তুমুল জনপ্রিয়তা পাই। কিন্তু এই জগত্টা আমাকে ক্রমশ অবমাননার দিকে ঠেলে দিয়েছে, ক্রমশ অসচেতন ভাবে আমি আমার ঈমান (বিশ্বাস) থেকে বেরিয়ে এসেছি। কারণ, আমি এমন একটা পরিবেশে কাজ করতাম যা ক্রমাগত আমার ঈমানের মাঝে এসে দাঁড়াত, ধর্মের সঙ্গে আমার সম্পর্ক বিপন্ন হয়ে পড়েছিল।’

জায়রা তার পোস্টে আরো বলেন, ‘কোরআনের ঐশ্বরিক জ্ঞানের মধ্যে আমি তৃপ্তি এবং শান্তি খুঁজে পেয়েছি। প্রকৃতপক্ষে হূদয় তার সৃষ্টিকর্তার জ্ঞান, তার গুণাবলী, তার করুণা এবং তার আদেশের জ্ঞান অর্জনে শান্তি পায়। আমি মনে করি খ্যাতি, সম্পদ যে পর্যায়ে পৌঁছে যাক না কেন, তাতে যেন কখনও শান্তি এবং নিজের বিশ্বাস না হারিয়ে যায়।’

১২ ঘণ্টায় জায়রার ভেরিফাইড ইন্সটাগ্রামে তার পোস্টে ৮০ হাজার লাইক পড়েছে। দশ হাজার লোক কমেন্ট করে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। টুইটার ও ফেসবুকে প্রতি মুহূর্ত তার ফলোয়ার বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে।

প্রসঙ্গত যে, ২০১৬ সালে ‘দঙ্গল’ সিনেমায় আমির খানের মেয়ের চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয় করেন জায়রা। এতে অভিনয় করে ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড, ন্যাশনাল ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড-ন্যাশনাল চাইল্ড অ্যাওয়ার্ড ফর একসেপশনাল অ্যাচিভমেন্ট পেয়েছেন।

সেই কিশোর শাহিনের ভ্যান উদ্ধার, গ্রেফতার ৩

সাতক্ষীরায় ধা রা লো দা য়ে র কো পে কিশোর ভ্যানচালক শাহিন গু রু ত র আহত হওয়ার ঘটনায় সন্দেহভাজন আ সা মি নাইমুল ইসলাম নাইমসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যায় সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমান এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার বাজিতপুর গ্রামের বাবরালী মোড়লের ছেলে নাইমুল ইসলাম নাইম (২৪), সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার আলাইপুর গ্রামের ভোলাই পাড়ের ছেলে আরশাদ পাড় ওরফে নুনু মিস্ত্রি (৬৫) ও সদর উপজেলার গোবিন্দকাটি গ্রামের হামজের আলীর ছেলে বাকের আলী (৪৫)।

পুলিশ সুপার জানান, বৃহস্পতিবার নাইমুলসহ অজ্ঞাত আরো তিনজন গোপন বৈঠক করে নাইমুলের ভ্যান ছিনিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করে। পরে একটা ভাড়ার কথা বলে শাহিনকে শুক্রবার সকালে কেশবপুর বাজারে আসতে বলে। সাড়ে তিনশ’ টাকা ভাড়া মিট করা হয়। সকালে তারা একসাথে শাহীনের ভ্যান যোগে কেশবপুর হাসপাতালের সামনে দিয়ে সরসকাটি চৌগাছা হয়ে ধানদিয়া হামজামতলা মোড়ে এসে ফাঁকা জায়গায় তার ভ্যানটি থামাতে বলে। এরপর ভ্যান রেখে শাহীনকে বাড়ি যেতে বলে। ভ্যান দিতে রাজি না হলে শাহীনের মাথায় জোরে কায়েকবার আ ঘা ত করে তাকে পাট ক্ষেতে ফেলে দেয়। পরে ভ্যানটি নিয়ে ঝাউডাঙ্গার উদ্দেশে রওনা দেয় ওই চারজন। ঝাউডাঙ্গা বাজারে এসে তারা প্রথমে বাকের আলীর কাছে চারটি ব্যাটারি ছয় হাজার ২৩৬ টাকায় বিক্রি করে। এরপর তারা কলারোয়া উপজেলার মির্জাপুর মোড়ে গিয়ে আরশাদ পাড় ওরফে নুনু মিস্ত্রির কাছে ভ্যানটি সাত হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি করে।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনার পর গত দুই দিনে যশোর পুলিশের সহযোগিতায় সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইলতুত্ মিশের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল প্রথমে কেশবপুর উপজেলার বাজিতপুর গ্রামের ঘটনার প্রধান সন্দেহভাজন নাইমুল ইসলাম নাইমের বাড়ি থেকে তাকে আটক করে। এরপর তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক ভ্যানসহ তার সহযোগী কলারোয়ার আলাইপুর থেকে নুনু মিস্ত্রি ও গোবিন্দকাটি থেকে বাকের আলীকে গ্রেফতার করা হয়।