বদহজম থেকে চিরতরে মুক্তির জন্য যাদুকরী ঘরোয়া ওষুধ

2383

যাদুকরী ঘরোয়া ওষুধ- যদি সাধারণ পেট খারাপ বা বদ হজমের সমস্যা হয় তাহলে তা সারানো সম্ভব ঘরোয়া উপায়ে-

বদহজমের সমস্যায় আদা পেটের অ্যাসিডের পরিমাণ কমায়, ফলে প্রদাহও কমে। তাই ইঞ্চিখানেক আদার একটি টুকরো এক গ্লাস পানিতে মিনিট দশেক ফুটিয়ে নিয়ে পানিটুকু ছেঁকে পান করুন।

দিনে বার তিনেক খেলেই আরাম মিলবে। বদহজমের সমস্যা কমাতে পুদিনা দারুণ কার্যকর। একমুঠো পুদিনার পাতা খুব ভালো করে ধুয়ে নিয়ে এক গ্লাস পানিতে ফুটিয়ে নিন। তারপর তা ছেঁকে, অল্প ঠান্ডা করে পান করুন।

বদহজমের ঘরোয়া চিকিৎসায় লেবুপানি দারুণ কার্যকর সমাধান হয়ে উঠতে পারে। লেবুপানি ক্ষারীয়, তাই অতিরিক্ত অ্যাসিডের প্রভাব কাটাতে পারে দ্রুত। হালকা গরম পানিতে এক বড় চামচ লেবুপানি মিশিয়ে খাবার আগে পান করতে পারেন। তবে যাদের দাঁত খুব সেনসেটিভ, তাদের টানা লেবুপানি খেতে থাকলে সমস্যা হতে পারে।

এক চা চামচ মৌরি ফুটিয়ে নিন এক গ্লাস পানিতে। তারপর এই মিশ্রণটা অল্প ঠান্ডা করে নিয়ে ছোট ছোট চুমুকে পান করুন। গা বমিভাব ও বদহজমের সমস্যায় মৌরি খুব কাজে দেয়। টানা এই সমস্যা চলতে থাকলে খাওয়াদাওয়ার পর অবশ্যই ভাজা মৌরি খাওয়ার অভ্যাস রাখবেন।

পেটের অ্যাসিডকে খুব তাড়াতাড়ি নিউট্রালাইজ করতে পারে বেকিং সোডা বা সোডা-বাই-কার্ব। এক গ্লাস হালকা গরম পানিতে আধ চা চামচ সোডা-বাই-কার্ব মিশিয়ে খেয়ে ফেলুন। ঘণ্টা দুয়েক পরেও সমস্যা না কমলে আরও একবার খেতে পারেন, তবে তার চেয়ে বেশি খেলে কোষ্ঠকাঠিন্যসহ নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে।

পেট খারাপ থেকে ভুঁড়ি কমাতে ভরসা রাখুন কাঁচা কলায়…

কলার নানা রকম পুষ্টিগুণ রয়েছে। তবে পাকা কলার পাশাপাশি কাঁচা কলাও কিন্তু শরীরে দারুণ প্রভাব । বিশেষজ্ঞদের মতে, কাঁচা কলা খেলে তা থেকে শরীরে নানা ধরনের ওষুধ স্বাভাবিকভাবেই প্রবেশ করে। রোগ নিরাময় ও শরীরের নানা ধরনের অসুবিধা দূর হয় এই কলা ফেলে। কাঁচকলায় থাকা পটাশিয়াম শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে। শরীরকে শক্তি জোগায়। কলাতে থাকে ভিটামিন বি সিক্স ও ভিটামিন সি। যা শরীরের কোষকে আরো সংগঠিত করে তোলে।

এছাড়া কাঁচা কলায় প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। দিনের বেলায় কাঁচা কলা খেলে তা শরীরের নানা রোগ দূর করতে বেশি সাহায্য করে। মেদভুঁড়ি কমাতে দারুণ কাজে লাগে কাঁচকলা। এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। যা শরীরের ফ্যাট কোষগুলোকে দূর করতে সাহায্য করে।