পেটের অতিরিক্ত চর্বি কমবে যে ফল খেলে

2262

পেটের অতিরিক্ত চর্বি কমবে- লিভার অসুস্থ থাকলে আপনার পুরো শরীর অসুস্থ থাকবে।তাই সুস্থ থাকতে হলে লিভার ভালো রাখা জরুরি। লিভার একটি জটিল রোগ হচ্ছে লিভার সিরোসিস। এর রোগে প্রতি বছর অনেক মানুষ মা রা যায়।

লিভারে দীর্ঘমেয়াদি প্রদাহ হতে থাকলে একটি সময় পরে গুটি তৈরি হয়। গুটি তৈরি হওয়ার পরে একে আমরা লিভার সিরোসিস বলি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, হেপাটাইটিস রোগে আক্রান্ত হয়ে গোটা বিশ্বে প্রতি বছর ১ কোটি ৪০ লাখ লোক মা রা যায়। এছাড়া পেটের অতিরিক্ত চর্বি কিন্তু রোগের বাসা।

জাম্বুরায় থাকা এনজাইম লিভারের জমে থাকা চর্বি ঝরাতে সাহায্য করে। তবে লিভার ভালো রাখার জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সচেতনতা। আর কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো লিভার সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।এছাড়া পেটের অতিরিক্ত চর্বি কমে।

আসুন জেনে নেই যে সব খাবার লিভার ভালো রাখে ও পেটের অতিরিক্ত চর্বি কমায়।

১.ওয়ার্ল্ড জার্নাল অব গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজির তথ্য অনুযায়ী, ব্লুবেরী ও ক্যানবেরী লিভার সুস্থ রাখতে সাহায্য করে ও বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ করে।

২.জাম্বুরায় থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লিভারকে সুস্থ রাখে। এই ফল প্রদাহজনিত সমস্যা কমিয়ে লিভারের ভালো রাখে। জাম্বুরায় থাকা এনজাইম লিভারের জমে থাকা চর্বি ঝরাতে সাহায্য করে। ভাল ফল পেতে বীজসহ জাম্বুরা খেতে পারেন।

৩.ওয়ার্ল্ড জার্নাল অব গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আঙুর প্রদাহ কমায়। সেই সঙ্গে লিভারের অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের লেভেল বাড়ায়।

৪.অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও নিটরেটে ভরপুর বিটরুটের জুস লিভারের প্রদাহ কমায়।

৫. ওমেগা থ্রি সমৃদ্ধ সামুদ্রিক মাছ শরীরের প্রদাহ কমায়। এসব মাছ অতিরিক্ত চর্বি কমায়।

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করবে যে পাতা

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা এখন ঘরে ঘরে। খবারে ভেজাল ও বাইরের খাবার কিনে খাওয়ার কারণে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হতে পারে। ফাস্টফুড, ব্যস্ত জীবনযাত্রার যুগে গ্যাস্ট্রিক, পেটের অসুখ এখন ঘরোয়া রোগ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করার জন্য ওষুধ খাচ্ছেন। তবু সমস্যার সমাধান হচ্ছে না। আর গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা যে কত যন্ত্রণাদায়ক তা কেবল যারা ভোগেন তারাই ভালো বলতে পারবেন। আপনি জানেন কি ওষুধ খেলেই কিন্তু গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর হয় না।

এ জন্য রয়েছে কিছু ঘরোয়া পরামর্শ। একটি পাতার রস যদি আপনি খেতে পারেন তবে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর হবে।

পুদিনা পাতা-

এক কাপ পানিতে ৫টা পুদিনা পাতা দিয়ে ফুটিয়ে খান। পেট ফাঁপা, বমিভাব দূরে রাখতে এর বিকল্প নেই।

মৌরির পানি ও সরষে-

মৌরি ভিজিয়ে সেই পানি খেলে গ্যাস থাকে না। এছাড়া সরষে গ্যাস্ট্রিকের সারাতে করতে সাহায্য করে। বিভিন্ন খাবারের সঙ্গে সরষে যোগ করা হয় যাতে সেসব খাবার পেটে গ্যাস্ট্রিক সৃষ্টি করতে না পারে।

কলা ও কমলা-

কলা ও কমলা পাকস্থলীর অতিরিক্ত সোডিয়াম দূর করতে সহায়তা করে। এতে করে গ্যাসের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এ ছাড়াও কলার সলুবল ফাইবারের কারণে কলা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার ক্ষমতা রাখে। সারা দিনে অন্তত দুটি কলা খান। পেট পরিষ্কার রাখতে কলার জুড়ি মেলা ভার।