কৃষক বাঁচান : ২২ বস্তা বেগুন ৫০০ টাকা আর লাউ ৩ টাকায় বিক্রি !

3602

কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবে – পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলার প্রায় ৯০ ভাগ মানুষই কৃষির ওপর নির্ভরশীল। তারা মৌসুম ভেদে বাণিজ্যিকভাবে তরমুজ, আলু, বেগুন, কপি, লাউ, করলা, বেগুন, শশা, মরিচ, টমেটোসহ রকমারী শাক-সবজি উত্পাদন করে এলাকার চাহিদা মিটিয়ে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করে থাকেন।

কিন্তু বর্তমানে করোনা সংক্রমণ রোধে জেলায় জেলায় লকডাউন ঘোষিত হওয়ায় উত্পাদিত সবজি ও ফসল কোথাও সরবরাহ করতে পারছেন না তারা। এ অবস্থায় স্থানীয় বাজারে কিছু কিছু বাজারজাতের ব্যবস্থা থাকলেও ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন কৃষকরা।

ফলে তাদের উত্পাদিত সবজি ও ফসল পানির দামে বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন তারা। এতে মহাজন ও বিভিন্ন সংস্থা থেকে নেওয়া ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে চরম হতাশায় দিন কাটছে তাদের। এ অবস্থায় স্বল্প সুদে ঋণসহ পৃথক প্রণোদনার দাবি তুলেছেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা।

রবিবার উপজেলার কলেজ মাঠে অস্থায়ী বাজারে গিয়ে দেখা যায়, কৃষকরা তাদের কষ্টার্জিত লাউ, বেগুন, করলাসহ বিভিন্ন সবজি নামমাত্র মূল্যে ফড়িয়াদের কাছে বিক্রি করছেন। বটতলী গ্রামের জনৈক বেগুনচাষি জহিরুল ইসলাম তার খেতের ২২ বস্তা বেগুন ৫০০ টাকায়, বামনকুমার গ্রামের জনৈক মামুন লাউ প্রতি পিস ৩ টাকা দরে বিক্রি করেন।

তারা জানান, স্বাভাবিক পরিস্থিতি থাকলে বেগুন কেজি প্রতি ১০ থেকে ১২ টাকা আর লাউ ১৫ থেকে ২০ টাকা দরে বিক্রি করতে পারতেন। করোনা পরিস্থিতিতে যে দামে তারা সবজি বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন এতে তাদের শ্রমিকের খরচও পাচ্ছেন না।

প্রসঙ্গত, তেঁতুলিয়া উপজেলায় এক জন করোনায় আ’ক্রা’ন্তে’র খবর পাওয়ায় তাত্ক্ষণিকভাবে পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন গত শুক্রবার বিকেলে জরুরি সভা ডেকে জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করেন। এ অবস্থায় শাক-সবজি উত্পাদনকারী কৃষকরা হতাশায় ভুগছেন। তারা আ’শ’ঙ্কা করছেন, কোভিড-১৯ এর কারণে বুঝি তাদের না খেয়ে থাকতে হবে।

বর্গাচাষি অশ্বিনী কুমার কান্না জড়িত কণ্ঠে জানান, তিনি প্রায় ১০ একর জমি ২ লাখ ৪০ হাজার টাকায় বর্গা নিয়ে আরো প্রায় ১০ লাখ টাকা খরচ করে করলা, লাউ, শশা, টমেটো, মরিচ ও পিয়াজের আবাদ করেছেন। কিন্তু এ পর্যন্ত স্থানীয় বাজারে নামমাত্র মূল্যে মাত্র দেড় লাখ টাকার সবজি বিক্রি করতে পেরেছেন।

একই বেদনার কথা জানান মির্জাপুর পানবারা এলাকার কৃষক তোজাম্মেল হক। তিনি প্রায় ১৫ একর জমিতে সবজি চাষে খরচ করেছেন প্রায় ২৫ লাখ টাকা, কিন্তু এখন পর্যন্ত বিক্রি করতে পেয়েছেন মাত্র ৫০ হাজার টাকা।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা কৃৃষি অফিসার মো. আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেন, চলতি মৌসুমে উপজেলায় প্রায় ৫১০ হেক্টর জমিতে সবজি চাষ হয়েছে। ফলনও বাম্পার হয়েছে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে কৃষক ভাইয়েরা উত্পাদিত সবজি ঠিকমতো বাজারজাত করতে পারছেন না। তবে তাদের জন্য কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে কি না, সে ব্যাপারে তিনি কিছুই জানাতে পারেননি।

করোনায় বিশ্বব্যাপী খাদ্য মন্দা, দুর্ভিক্ষ সৃষ্টি করবে: প্রধানমন্ত্রী

করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বব্যাপী যে খাদ্য মন্দা সৃষ্টি হবে তাতে আগামীতে বিশ্বব্যাপী দুর্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে আমরা যদি খাদ্য উৎপাদন করে খাদ্য মজুত রাখতে পারি তাহলে আমরা দুর্ভিক্ষে পড়ব না। বরং আমরা অনেককেই সাহায্য করতে পারব। সেই ব্যবস্থা এখন থেকে নিতে হবে।

সোমবার সকাল ১০টায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ে গণভবন থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্যকালে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বব্যাপী আজকে মহামারী আকারে দেখা দিয়েছে করোনাভাইরাস। যার ফলে হয়তো দুর্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে। সেখান থেকে আমাদের দেশকে বাঁচানো এবং বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার হাত থেকে দেশকে রক্ষা করা, এটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। সবাইকে অনুরোধ করব, আপনারা আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করবেন।

তিনি বলেন, আমাদের মাটি উর্বর, মানুষ অনেক কর্মঠ, বাংলাদেশ খাদ্যে এখন উদ্বৃত্ত। কারও এক ইঞ্চি জমিও যেন অনাবাদি না থাকে। সেদিকে দৃষ্টি দেবেন। সেটাই আমি চাই। যে যা পারেন কিছু চাষ করেন। ধান কাটার পরে নতুন আরেকটা ফসল কি করা যায় আমাদের সেটা করা উচিত।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা প্রায় ৯৫ হাজার কোটি টাকার উপরে প্রণোদনা ঘোষণা করেছি। আমরা এজন্য করেছি আমাদের অর্থনীতি সচল রাখার জন্য।

এর আগে গত ১৬ এপ্রিল ঢাকা বিভাগের ৯টি জেলা ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, নরসিংদী, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, শরীয়তপুর, মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেন প্রধানমন্ত্রী।

তারও আগে চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল ও খুলনা বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসে দেশে নতুন করে আরও ১০ জনের মৃত্যু হওয়ায় সোমবার এ সংখ্যা ১০১ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া নতুন করে ৪৯২ জন শনাক্ত হওয়ায় এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৯৪৮ জনে।