অর্থাভাবে মসজিদের নির্মাণকাজ বন্ধ, নামাজ পড়তে পারছেন না মুসল্লিরা!

1446

মসজিদের অভাবে নামাজ পড়তে পারছেন না- বরহাট্টা উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের কর্ণপুর গ্রামের উত্তরপাড়া জামে মসজিদটি বেশ পুরনো। অর্ধশতাধিক মুসলিম পরিবারের সদস্যরা এ মসজিদে নামাজ আদায় করতেন। সম্প্রতি পুরনো এ মসজিদটি নতুন করে নির্মাণকাজ শুরু হয়। অর্থাভাবে নির্মাণকাজ বন্ধ হওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন মুসল্লিরা।

নেত্রকোনার বারহাট্টায় পুরনো একটি মসজিদের নির্মাণকাজ স্থানীয় তিন ব্যক্তির উদ্যোগে শুরু হয়। মসজিদটির কাজ শুরুর কয়েক দিনের মধ্যেই তা বন্ধ হয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় তা আবার শুরু হয়। মাঝপথে এসে মসজিদটির কাজ আবারও বন্ধ হওয়ায় দুশ্চিন্তা ও দুর্ভোগে পড়েছেন মুসল্লিরা।

কর্ণপুর গ্রামের অর্ধশতাধিক মুসলিম পরিবারের বেশিরভাগই কৃষক আর খেটে খাওয়া মানুষ। কুঁড়েঘর দিয়ে মসজিদটি শুরু হলেও পরে তা টিনের ঘরে উন্নীত হয়। মসজিদের টিনগুলো পুরনো হওয়া, তা দিয়ে বৃষ্টির পানি পড়ার কারণে মুসল্লিদের নামাজে বিঘ্ন ঘটে।

মসজিদটির পুনঃনির্মাণ শুরু হলেও অর্থাভাবে এর কাজ বন্ধ রয়েছে। এতেই বিপাকে পড়েছেন উদ্যোগ নেয়া ব্যক্তিরা ছাড়াও মসজিদটির মুসল্লিরা। মসজিদটি নির্মাণে স্থানীয়রা সহযোগিতায় এগিয়ে এলেও তা শেষ করা সম্ভব হয়নি।

বর্তমানে মসজিদটিতে নামাজ পড়তে আদায় করতে পারছেন না মুসল্লিরা। অনেক চেষ্টা তদবিরে মসজিদের অর্ধেক কাজ শেষ হলেও পুরো কাজ শেষ করতে না পারায় মুসল্লিরা দুর্ভোগে পড়েছেন।

মসজিদটির নির্মাণকাজ শেষ করতে না পারলে নামাজ পড়া সম্ভব হবে না। নির্মাণকাজ শেষ করতেই বিত্তবানদের সাহায্য প্রয়োজন। তাতে নির্মাণ শেষ হলেই স্থানীয়রা মসজিদে নামাজ পড়ার সুযোগ পাবেন। মসজিদ নির্মাণ শেষে নামাজ পড়ার সে অপেক্ষায় রয়েছে কর্ণপুরের অর্ধশতাধিক পরিবারের মুসল্লিরা।

সন্ধান মিলল ১২০০ বছর আগের এক মসজিদের

ইসরায়েলের নেগেভ মরুভূমিতে প্রত্নতাত্ত্বিকরা সন্ধান পেলেন ১২০০ বছর আগে গড়ে তোলা একটি মসজিদের ধ্বংসাবশেষ। বিশ্বের প্রাচীনতম মসজিদগুলোর মধ্যে এটি অন্যতম।

বেদুঈনদের শহর রাহাতে মসজিদটি পাওয়া যায়। ইসরায়েল সরকারের পুরাকীর্তি বিভাগ জানায়, সেখানে ভবনের নির্মাণকাজের সময় মাটি খুঁড়ে এর অস্তিত্ব মিলেছে।

ভবনের নির্মাণকাজ চলাকালে মসজিদটির অস্তিত্ব মিলেছেধারণা করা হচ্ছে, সপ্তম কিংবা অষ্টম শতকে ইসরায়েলে ইসলামের আগমনের পর দেশটিতে প্রথম যেসব মসজিদ স্থাপিত হয়েছিল, সেগুলোর মধ্যে এটি অন্যতম।

খনন কাজের পরিচালক জন সেলিগম্যান ও শাহার জুরের মন্তব্য, বিশ্বের যেকোনও দেশের প্রেক্ষাপটে এই মসজিদ বিরল এক আবিষ্কার।

গবেষকদের বিশ্বাস, স্থানীয় কৃষিজীবী মানুষ মসজিদটিতে ইবাদত করতেন। এখন স্থানীয়রা সেখানে নামাজ আদায় করেন। এ মসজিদের উপরিভাগ ছিল খোলা। এর আকৃতি আয়তক্ষেত্রাকার। এতে একটি অর্ধবৃত্তাকার কুলুঙ্গি ছিল। এগুলো দেখে অনুমান করা হয়, একহাজারেরও বেশি বছর আগে এটি নামাজের জন্য ব্যবহার হতো।