ব্যাকটেরিয়া থেকে ক্যানসার প্রতিষেধক তৈরি করলেন বাঙালি গবেষক

111

ব্যাকটেরিয়া থেকে ক্যানসার প্রতিষেধক তৈরি করলেন- শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে ম্যালিগন্যান্ট টিউমরের মোকাবিলা করতে পারে এই ব্যাকটেরিয়া ৷ এমনটাই দাবি করলেন নিউ ইয়র্কের কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির বাঙালি গবেষক শ্রেয়ান চৌধুরী ৷

ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়া বিশেষ ভাবে প্রোগ্রাম করে এই প্রতিষেধক ইতিমধ্যেই ইঁদুরের শরীরে পরীক্ষিত হয়েছে। এই ব্যাকটেরিয়ায় থাকা ন্যানো বডি টিউমর কোষের সিডি৪৭ প্রোটিন নষ্ট করে দেয়। গবেষকদের দাবি এই ব্যাকটেরিয়ার সাহায্যে লিম্ফোমিয়া, স্তন ক্যানসার, ত্বকের ক্যানসার সারাতে পারে।

লিম্ফোমিয়া আক্রান্ত যে ইঁদুরদের ওপর প্রোগ্রাম করা ব্যাকটেরিয়া প্রয়োগ করা হয়েছিল তাদের মধ্যে ৮০ শতাংশ বেঁচে ছিল ১০০ দিন পর্যন্ত। অন্য দিকে লিম্ফোমিয়া আক্রান্ত যে ইঁদুরদের ওপর আনপ্রোগ্রাম ই কোলাই প্রয়োগ করা হয়েছিল তাদের ১০০ শতাংশই ৩০ দিনের মধ্যে মারা যায়।

বাঙালি বিজ্ঞানীর এই আবিষ্কার যুগান্তকারী বলেছেন হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির গবেষকরা ৷ নেচার মেডিসিন জার্নালে গত বুধবার এই গবেষণার ফল প্রকাশিত হয়েছে।

সুত্র-বি ডি মর্নিং।

প্রেমিকার জন্য মোটরসাইকেল কিনতে এটিএম বুথ লুট !

প্রেমিকাকে সোনার চেইন উপহার দেয়া আর নতুন মোটরবাইকে চাপিয়ে ঘোরানোর প্রতিশ্রুতি ছিল। কিন্তু প্রতিশ্রুতি পালনে অন্যতম অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায় অর্থ। বাড়িতে বাবা-মাকে বার বার বলেও টাকা না পাওয়ায় এটিএম লুটের চেষ্টা করে প্রেমিক। তবে শেষরক্ষা হয়নি। স্থানীয়দের কাছে তথ্য পেয়ে পুলিশ হাতেনাতে গ্রেফতার করে কলেজ শিক্ষার্থী ওই প্রেমিককে।

এ সময় তার কাছ থেকে পুলিশ উদ্ধার করেছে স্ক্রু ডাইভার, প্লাস ও একজোড়া রাবারের গ্লাভস। এ ঘটনা ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব বর্ধমান জেলার মঙ্গলকোটের কাশেমনগর এলাকায়।

গ্রেফতারকৃত ওই প্রেমিকের নাম উজ্জ্বল শেখ (১৯)। স্থানীয় গুসকরা কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র তিনি। মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিকে ৬০ শতাংশের বেশি নম্বর পেয়ে পাশ করেছিলেন উজ্জ্বল। কিন্তু উজ্জ্বলের এমন কাণ্ডে বিস্মিত হয়ে পড়েছেন বাড়ির লোকজন।

পুলিশি জেরায় উজ্জ্বল স্বীকার করেছেন, প্রেমিকার মন গলাতে এছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না তার। কারণ বাড়িতে বারবার টাকাপয়সা চেয়েও কোনো লাভ হয়নি। উজ্জ্বলের বাবা হাসান শেখের অল্প কিছু জমি রয়েছে; তাই দিয়ে কোনো রকমে সংসার চলে।

প্রেমিক উজ্জ্বল বলেছেন, এটিএম ভাঙার কৌশল রপ্ত করতে ইউটিউবের সাহায্য নিয়েছিলেন তিনি। এটিএম ভাঙার আগে বেশ কয়েকবার বুথে গিয়ে রেকিও করেন।

পুলিশ বলছে, এটিএম ভাঙতে গিয়ে লকিং সিস্টেমে ঘাবড়ে যায় উজ্জ্বল। তখন তিনি ফের ইউটিউবের আশ্রয় নেন। ইউটিউব খুলে পরবর্তী ধাপ দেখতে গিয়ে গোলবাধে। কারণ ততক্ষণে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায়। উজ্জ্বলকে কাটোয়া মহকুমা আদালতে তোলা হলে বিচারক পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন।

তবে এটিএম ভাঙার চেষ্টার ঘটনার পেছনে শুধু প্রেমের ব্যাপার রয়েছে কি-না তা এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ। তবে বিস্তারিত জানতে তাকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।