বিমানে অন্য নারীর দিকে তাকানোর কারণে প্রেমিকের মাথায় ল্যাপটপ ভাঙলেন প্রেমিকা

180

যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামি থেকে লস অ্যাঞ্জেলস যেতে বিমানে চড়েছিলেন এক প্রেমিক-প্রেমিকা জুটি। ঠিকঠাক ছিল সবই। হঠাৎ প্রেমিকার মনে হলো অন্য এক নারীর দিকে তাকিয়ে আছেন প্রেমিক। এর থেকে শুরু বাকবিতণ্ডা। এ পর্যায়ে তার মাথায় ল্যাপটপ ভাঙলেন প্রেমিকা।

এ সময় বিমানের ভেতরে থাকা একজন ঘটনার ভিডিও করেন। সেই ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম গুলোতে।

ভিডিওটিতে দেখা যায়, ওই জুটির চিৎকারে শুনে তাদের কাছে ছুটে যান ফ্লাইট অ্যাটেন্ডার। ঝ গ ড়া থামাতে প্রেমিককে বিমানের সামনের দিকের আসনে চলে যেতে বলেন তিনি।

দেখা যায় প্রেমিকার বকা থেকে বাঁ চ তে তার পাশের আসন থেকে উঠে সামনের দিকে উঠে যাচ্ছেন প্রেমিক। কিন্তু প্রেমিকার রাগ তখনও কমেনি। প্রেমিককে মারতে মারতেই তার পিছন পিছন ছুটে যান তিনি। তারপর হাতে থাকা ল্যাপটপ দিয়ে মারতে থাকেন প্রেমিকের মাথায়।

সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের খবরে বলা হয়, ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিমানের ভিতর সে সময় যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল তা সামলাতে ওই জুটিকে নামিয়ে দেওয়া হয় বিমান থেকে। তারপর বিমানটি মিয়ামি থেকে উড়ে যায় লস অ্যাঞ্জেলসের উদ্দেশে।

ঘরে ছাপা নোট নিয়ে গাড়ি কিনতে গিয়ে তরুণী আ ট ক….

ন ক ল নোট নিয়ে কেউ সত্যিকারের গাড়ি কিনতে শো-রুমে পৌঁছে যেতে পারেন, এমনটা ভাবতে পারেন? এখানেই শেষ নয়, যিনি ঘরে ছাপা সেই নোট নিয়ে অডির গাড়ি কিনতে গিয়েছিলেন তিনি কোনও শিশু নন, ২০ বছর বয়সী তরুণী।

জানা গেছে, অন্য দিনের মতো গত শুক্রবার ব্যস্ততা ছিল জার্মানির কায়সার স্লোউটার্নের একটি গাড়ির শো-রুমে। সেখানে উপস্থিত হন ২০ বছর বয়সী ওই নারী। এই গাড়ি সেই গাড়ি দেখতে দেখতে, অডি এ৩, ২০১৩ সালের মডেলটি পছন্দ হয় তার।

গাড়ি পছন্দের পর দাম মেটাতে কাউন্টারে পৌঁছে যান তিনি। সেখানে ব্যাগ থেকে বের করে দেন ১৫ হাজার ইউরো। সেই নোট হাতে নিয়েই অবাক ক্যাশ কাউন্টারে বসা ব্যক্তি।

নোটগুলো হাতে নিয়ে তিনি জানতে চান, তিনি মনোপলি (এক ধরনের বোর্ড গেম, যেখানে ন ক ল নোট ব্যবহার হয়) খেলতে চান কিনা? এরপর পুলিশে ফোন করেন ওই কর্মী। পুলিশ এসে তাকে আটক করে।

পুলিশ ওই নারীর অ্যাপার্টমেন্টে তল্লাশি চালায়। সেখানে তারা দেখেন, একটি কমার্শিয়াল ইঙ্কজেট প্রিন্টার দিয়ে নোটগুলো ছাপা হয়েছিল।

জার্মানির আইন অনুসারে, নোট জা ল করার ক্ষেত্রে তিন মাস থেকে দুই বছর পর্যন্ত কারা দ ণ্ড হতে পারে। যদি কেউ একা এই কাজ করেন, তাহলে ন্যূনতম তিন মাস কারা দ ণ্ড হতে পারে। আর কেউ যদি দলবদ্ধ এবং ব্যবসায়িকভাবে এই কাজ করেন, তাহলে দু’বছর পর্যন্ত কারা দ ণ্ডের বিধান রয়েছে।