বিদ্যালয় পরিদর্শনে গিয়ে ছেলেধ’রা সন্দেহে বিপদে শিক্ষা কর্মকর্তা

129

বিদ্যালয় পরিদর্শনে গিয়ে- ছেলেধ’রা সন্দেহে সারাদেশে গু জ ব চলছেই। এরই ধারাবাহিকতাই এবার প্রশাসনিক কাজে স্কুল পরিদর্শনে এসে চট্টগ্রাম প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা ছেলেধ’রা সন্দেহের শিকার হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

গত সোমবার দুপুরে নগরীর উত্তর কাট্টলী মুন্সি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শনে এসে অভিভাবকদের সন্দেহের কবলে পড়েন চট্টগ্রাম প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের এডিপিও তাপস পাল। পরে স্কুল কর্তৃপক্ষ, জনপ্রতিনিধি ও পুলিশের সহযোগিতায় পরে ওই শিক্ষা কর্মকর্তা অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি থেকে রক্ষা পান।

প্রশাসনিক কাজে গতকাল সোমবার সকালে এই স্কুলে আসেন শিক্ষা কর্মকর্তা তাপস পাল। অচেনা মানুষকে স্কুলে প্রবেশ করতে দেখে একের পর এক অভিভাবকরা এসে জড়ো হন। একপর্যায়ে তারা স্কুল কার্যালয়ের সামনে চি ৎ কা র চেঁচামেচি শুরু করে।

ঘটনার কথা জানতে পেরে অন্যান্য অভিভাবকরাও স্কুল কর্তৃপক্ষকে ফোন করতে শুরু করে। স্থানীয়রা জানান, গত রোববার উত্তর কাট্টলী মুন্সি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ৪ জন শিক্ষার্থীর মাথা সংগ্রহ করা হবে বলে এলাকায় একটি গু জ ব রটে। এ সময় ওই শিক্ষা কর্মকর্তা ছেলের মাথা নেওয়ার ব্যাপারে স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে চুক্তি করছে বলেও গু জ ব রটিয়ে দেয়া হয়।

এমন পরিস্থিতিতে স্কুল কর্তৃপক্ষ স্থানীয় প্রশাসন ও গণ্যমান্য ব্যক্তিকে এ ঘটনার কথা জানায়। পরে পাহাড়তলী থানার ওসিকে ফোন করলে তিনি একজন এসআই ও কয়েকজন ফোর্স পাঠান। ঘটনাস্থলে পুলিশ আসলে অভিভাবকরা কিছুটা শান্ত হন। কিন্তু তাদের সন্দেহ কমে না। পুলিশের উপস্থিতিতে পরবর্তীতে স্কুল ছুটি হলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

এই ঘটনার ব্যাপারে স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি। সহকারী শিক্ষক সাইফুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এটি গু জ ব রটিয়ে ঘটনা সৃষ্টি করার চেষ্টা হতে পারে। পরে থানার ওসি এসে ক্লাসে ক্লাসে শিক্ষার্থীদের বুঝিয়েছেন। এবিষয়ে সমাবেশ করে সচেতনতা কার্যক্রম চালানো হবে। সুত্র-বি ডি জার্নাল।

‘গু জ বে র পোস্টে লাইক-শেয়ার করলেও ব্যবস্থা’

গু জ বে কান না দিতে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন নরসিংদীর পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন। তিনি বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে যারা গু জ ব ছড়াচ্ছে তাদের আইডি শনাক্ত করা হচ্ছে। যারা তাদের পোস্টে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করছেন। তাদেরকেও আইনের আওতায় আনা হবে।

সুতরাং না জেনে, না শুনে এবং চেক না করে গু জ ব ছড়ানোতে অংশ নেবেন না। আজ বুধবার দুপুরে পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। পুলিশ সুপার বলেন, একটি চক্র অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে নতুন নতুন গু জ ব ছড়াচ্ছে।

তাই গু জ বে কান না দিয়ে যে কোন বিষয়ে সন্দেহ হলে তাৎক্ষণিক পুলিশকে জানান। গু জ ব থেকে শহরবাসীকে রক্ষা করতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকিং, লিফলেট বিতরণ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।