বাড়িতে গ্যাস সিলিন্ডার থাকলে এই ১০টি ভুল কখনই করবেন না

610

এখন কম বেশি প্রায় সব বাসা-বাড়িতেই গ্যাসের সিলিন্ডার ব্যবহার করা হয়। সিলিন্ডারতো ব্যবহার করি কিন্তু এ সম্পর্কে টুকিটাকি বিষয়গুলো কি জানা আছে? বাড়িতে গ্যাস সিলিন্ডার থাকলে সাধারণ কিছু নিয়ম মেনে চলা ভালো। যা না জানা থাকলে বড় বিপদে পড়তে পারেন আপনি অথবা আপনার প্রিয়জন। গ্যাস সিলিন্ডার বিষয়ক প্রয়োজনীয় ১০টি নিয়ম জেনে রাখুন-

১. চুলার পাশে কোনোভাবেই সিলিন্ডার রাখবেন না। ফলে যেকোনো সময় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটতে পারে। গ্যাস সিলিন্ডারের সঙ্গে যে রবার পাইপটি থাকে, সেটিতে ‘আইএসআই’ ছাপ থাকা বাধ্যতামূলক।

২. রেগুলেটরের নজলটি যাতে পাইপ দিয়ে ভাল করে কভার করা থাকে, তা লক্ষ্য রাখুন। গরম বার্নারের সঙ্গে যাতে গ্যাসের পাইপ কোনও ভাবে লেগে না থাকে, তা খেয়াল রাখুন।

৩. পাইপটি নিয়মিত ভিজে কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করুন, কিন্তু ভুলেও সাবান জল ব্যবহার করবেন না। ২ বছর অন্তর অবশ্যই পাইপটি বদলে ফেলুন।

৪. পরিষ্কার রাখার জন্য গ্যাসের পাইপটিকে কোনও রকমের কাপড় বা প্লাস্টিক জাতীয় জিনিস দিয়ে মুড়ে রাখবেন না। সে ক্ষেত্রে পাইপ ফেটে গেলে বা লিক হলে ধরা পড়বে না।

৫. গ্যাস লিক হচ্ছে বুঝতে পারলে বাড়ির কোনও ইলেক্ট্রিক অ্যাপ্লায়েন্স অন করবেন না। ওভেন, রেগুলেটর বন্ধ করে জানলা, দরজা খুলে দিন।

৬. গ্যাস লিক করার পরে যদি কিছু ক্ষণের মধ্যে গন্ধ বন্ধ না হয়, তাহলে গ্যাস ডিস্ট্রিবিউটরের অফিস বা হেল্পলাইন নম্বরে ফোন করুন (১৯০৬)। সিলিন্ডার থেকে রেগুলেটর আলাদা করে দিয়ে সিলিন্ডারের মুখে সেফটি ক্যাপও পরিয়ে দিতে পারেন।

৭. খালি সিলিন্ডার থেকে গ্যাসের রেগুলেটর খোলার সময় আশেপাশে কোনও মোমবাতি, প্রদীপ জাতীয় জিনিস যাতে না জ্ব”লে, তা খেয়াল রাখুন।

৮. একটি ঘরে দু’টি সিলিন্ডার রাখার জন্য অন্তত ১০ বর্গফুট জায়গা থাকা জরুরি। এমন জায়গায় সিলিন্ডার রাখবেন না যেখানে সহজেই তা অতিরিক্ত গরম হয়ে যেতে পারে।

৯. সিলিন্ডারের উপররে কখনওই কোনও কাপড়, বাসন ইত্যাদি রাখবেন না।

১০. গ্যাসের ওভেনটি সব সময়ে সিলিন্ডারের অন্তত ছয় ইঞ্চি উপরে রাখুন। ওভেনের উপর যাতে সরাসরি হাওয়া না লাগে, সেদিকে লক্ষ্য রাখুন।

একটি খালি এলপিজি সিলিন্ডারের ওজন প্রায় ১৫.৩ কেজি।

প্রতিটি সিলিন্ডারে গ্যাসের পরিমাণ থাকার কথা ১৪.২ কেজি।

গ্যাস ও সিলিন্ডারের ওজন মিলিয়ে একটি ভর্তি সিলিন্ডারের ওজন হয় ২৯.৫ কেজি।

গ্যাস সিলিন্ডারের গায়ে একটি বিশেষ চিহ্ন থাকে। এটির মাধ্যমে সংখ্যা মাস এবং বছরকে বোঝায়।

শেষ সংখ্যাটির অর্থ হল বছর। উদাহরণ সহকারে বোঝানো যাক। উপরের সিলিন্ডারটিতে লেখা রয়েছে ‘বি-১৩’। অর্থাৎ এই সিলিন্ডারটি ২০১৩ সালের এপ্রিল থেকে জুন মাসের পরে ব্যবহৃত হলে তা থেকে বিপদের সম্ভাবনা।