প্রেমে রাজি না হওয়ায় টেনে’হেঁচড়ে স্কুলছাত্রীকে তুলে নেয়ার চেষ্টা

92

স্কুলছাত্রীকে তুলে নেয়ার চেষ্টা- নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার আলীর-টেকে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় স্কুল চলাকালীন নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে টেনে-হেঁচড়ে তুলে নেয়ার চেষ্টা চালিয়েছে ব’খাটেরা। এ ঘটনায় যেমন চাঞ্চ্যলকর সৃষ্টি হয়েছে তেমনি স্কুলের ছাত্রী সহ অভিভাবকদের মধ্যে আ’ত’ঙ্ক দেখা দিয়েছে। বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আলীরটেক ইউনিয়নের কুড়েরপাড় আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

স্কুল সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে ওই স্কুলের নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছে আলীর-টেকের দক্ষিণ ক্রুকেরচর এলাকার সালাউদ্দিনের ব’খাটে ছেলে আল হাসান (১৮)। সে তার বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে ওই ছাত্রীর আসা-যাওয়ার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। এতে স্কুলছাত্রী কোনো কর্ণপাত না করলে নানা ধরনের হু ম কি প্রদান করে।

বুধবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে দুই বন্ধুকে নিয়ে আল হাসান স্কুলে প্রবেশ করে স্কুলের কক্ষে থাকা ওই ছাত্রীকে ফের প্রেমের প্রস্তাব দেয়। সে রাজি না হওয়ার তার শরীরে স্প র্শ করে টানে-হেঁচড়ে স্কুলের দ্বিতীয় তলা থেকে নিচে নামিয়ে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালায়। ওই সময় স্কুলের শিক্ষার্থীরা দেখে ডাক-চিৎকার দিলে ব’খাটেরা পালিয়ে যায়।

ওই ছাত্রী কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, স্কুলের নিরাপত্তার অভাবে বহিরাগত ব’খাটেরা আমার শরীরে হাত দিয়ে টানা-হেঁচড়া করে তুলে নিয়ে যাওয়ার সাহস পেয়েছে। আর স্কুলের এক ছাত্রের সহযোগিতায় ব’খাটে আল হাসান এ ধরনের কাজ করার দুঃসাহস করতে পেরেছে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন জানান, ঘটনার সময় আমি স্কুলে ছিলাম না। তবে সংবাদ পেয়ে দ্রুত স্কুলে এসে জানতে পারলাম ঘটনা। এসে যতটুকু জানতে পারলাম স্থানীয় ব’খাটে আল হাসান তার বন্ধুদের নিয়ে ওই ছাত্রীকে তুলে নেয়ার চেষ্টা করেছে। স্কুলের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা ব’খাটেদের ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করা হবে।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাহিদা বারিক জানান, আমি লোক মাধ্যমে খবর পেয়েছে। স্কুল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি অবগত করেনি। ঘটনার খোঁজ নিয়ে এবং স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শিশুর গ লা কা’টার সময় যুবক ধরা….

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় আলিফ (৬) নামে এক শিশুকে পরনের কোট পেঁচিয়ে বুকে পা রেখে গলা কা টা র সময় আমির হোসেন (৩০) নামে এক যুবককে হাতেনাতে ধরে গণ’পি’টু’নি দিয়েছে এলাকাবাসী। বুধবার রাত ৯টার দিকে ফতুল্লার পশ্চিম ভুইগড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পশ্চিম ভুইগড় এলাকার শাহীন মিয়ার ছেলে আলিফ রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাড়ির পাশে নানা শহীদুল্লাহর বাড়িতে যাওয়ার সময় আমির হোসেন নামে এক যুবক তাকে আটক করে।

এ সময় শিশুটিকে জোর করে আমির হোসেন তার পরনের কোট দিয়ে পেঁচিয়ে ফেলে। এরপর শিশুটিকে মাটিতে ফেলে বুকে পা রেখে ধা’রালো ছু রি দিয়ে গলা কে’টে হ ত্যার চেষ্টা করে। তখন শিশুটির চাচি সেলিনা ওই পথ দিয়ে যাওয়ার সময় ঘটনা দেখে চিৎকার শুরু করেন।

এতে আশেপাশের লোকজন ছুটে এসে আমিরের কাছ থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে এবং আমিরকে ধরে গণ পি টুনি দিয়ে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আমিরকে আটক করে এবং শিশু আলিফকে তার বাবা-মায়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়। আটক আমির তার পরিচয় নিয়ে বিভ্রান্ত করছে। তার সঠিক পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে বলেও ওসি জানান।