প্রবাসী ছেলের জীবন বাঁচাতে আমিরাতে ছুটে গিয়ে কিডনি দিলেন মা

249

‘মা’ শব্দের ব্যাপ্তি যে কতটা বিশাল তা একমাত্র সন্তানই জানে। একমাত্র সন্তানের মুখের হাসির জন্য মা পৃথিবীতে সব কিছু ত্যাগ করতে পারেন। নিজের জীবনের বিনিময়ে সন্তানের জীবন বাঁচিয়েছেন মা। এ ধরনের ঘটনার অনেক নজির রয়েছে পৃথিবীতে। সন্তানের জন্য ভালোবাসার এমই দৃষ্টান্ত গড়েছেন মৌলভীবাজারের বড়লেখার এক মা।

ছেলের জীবন বাঁচাতে নিজের একটি কিডনি দিয়েছেন তিনি। শুধু তাই নয়, প্রিয় সন্তানকে বাঁচাতে বাংলাদেশ থেকে তিনি ছুটে গিয়েছেন সংযুক্ত আরব-আমিরাতে।

গত বুধবার সন্ধ্যায় সংযুক্ত আরব আমিরাতের একটি হাসপাতালে মায়ের দেওয়া কিডনি ছেলের দেহে সফলভাবে প্রতিস্থাপন করেছেন চিকিৎসকরা। বর্তমানে মা ও ছেলে দুজনেই সুস্থ রয়েছেন বলে জানা গেছে। ওই মায়ের নাম সালেহা বেগম (৪৪)। তিনি বড়লেখা পৌরসভার পাখিয়ালা গ্রামের প্রবাসী ফখর উদ্দিনের স্ত্রী।

স্বজন, প্রতিবেশী ও প্রবাসী সূত্রে জানা গেছে, বেলাল আহমদ (২৮) প্রায় ৬ বছর আগে সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাড়ি জমান। সেখানে তিনি তার বাবার সাথে থাকেন। তিনি সেখানে একটি কোম্পানিতে চাকরি করেন।

কিন্তু বেলাল দীর্ঘদিন ধরে কিডনি জটিলতায় ভুগছিলেন। কিডনি ডায়ালাইসিস করেও তাঁর অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি। সম্প্রতি চিকিৎসরা বেলালকে জানান তাঁর দুটো কিডনি একেবারে অকেজো হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় চিকিৎসকরা তাকে কিডনি প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দেন।

এদিকে বেলালের দুটো কিডনি নষ্ট হওয়ায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন তাঁর মা সালেহা বেগম। এই অবস্থায় নিজের কথা চিন্তা না করে একটি কিডনি ছেলেকে দেওয়ায় সিদ্ধান্ত নেন তিনি। পরিক্ষা-নিরীক্ষা করে ছেলের কিডনি সাথে মিলে যাওয়ায় সম্প্রতি সালেহা বেগম সংযুক্ত আরব-আমিরাতে যান।

অবশেষে গত বুধবার আমিরাতে আবুধাবি শেখ খলিফা হাসপাতালের চিকিৎসকরা মায়ের দেওয়া একটি কিডনি ছেলের দেহে সফলভাবে প্রতিস্থাপন করতে সক্ষম হন।

সংযুক্ত আরব-আমিরাত প্রবাসী বেলালের মামাতো ভাই মুহিবুর রহমান বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, বেলালের দুটি কিডনি নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। পরে ফুফু (বেলালের মা) তাকে একটি কিডনি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

বেলালকে কিডনি দিতে ফুফু কয়েক মাস আগে দেশ থেকে এখানে এসেছেন। বুধবার সন্ধ্যা আরব-আমিরাতের একটি হাসপাতালে অপারেশনের মাধ্যমে বেলালের দেহে কিডনি সফল ভাবে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। মা ও ছেলে দুইজনে সুস্থ আছেন।

তিনি বলেন, নিজের কথা চিন্তা না করে একজন মা ছেলেকে বাঁচাতে নিজের একটি কিডনি দিয়ে যে দৃষ্টান্ত গড়েছেন। তা সত্যিই বিরল। আসলে সন্তানের জন্য সব মা-ই যে সব কিছু ত্যাগ পারেন। এটি একটি উদাহরণ হয়ে থাকবে।