না.গঞ্জে ভুয়া র‌্যাব চক্রের প্রধানসহ ৩ প্রতারক গ্রে’ফতার

39

ভুয়া র‌্যাব চক্রের প্রধানসহ ৩ প্রতারক- নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে অভিযান চালিয়ে সংঘবদ্ধ র‍্যাবের ভুয়া চক্রের প্রধানসহ তিন প্রতারককে আটক করেছে র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

আজ (২৫ আগস্ট) রোববার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান র‍্যাব-১১ এর উপ-পরিচালক মেজর তালুকদার নাজমুছ সাকিব। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গতকাল শনিবার দিবাগত রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রূপগঞ্জের রূপসী এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ইউনিফর্ম পরিহিত ২টি ছবি (এডিট করা), বাংলাদেশ র‌্যাব লেখা ও র‌্যাবের মনোগ্রাম সম্বলিত ১টি জ্যাকেট, র‌্যাব সদর দপ্তরের সিল ও অফিসারদের ভুয়া স্বাক্ষরসহ ৭টি নোটিশ, র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা অফিসার, ডিউটি অফিসার ও তদন্তকারী অফিসার নামীয় ৪টি সিল, বিজিবির ১টি আইডি কার্ড, বিজিবির ১ সেট ইউনিফর্ম, ১টি ল্যাপটপ, ১টি প্রিন্টার, ১টি মোবাইল ও ১৪টি সিম কার্ড জব্দ করা হয়।

আটক তিনজন হলো- কুড়িগ্রামের উকিলপুরের মাসতীবাড়ি এলাকার জয়নাল আবেদীন (২৭), গাজীপুর সদর জান্দালিয়া পাড়া এলাকার নাজমুল হোসেন (২৭) ও কিশোরগঞ্জ জেলার কাটিয়ারির চরজাকারিয়া গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমান (২৯)।

মেজর তালুকদার নাজমুছ সাকিব জানান, এ চক্রের দ্বারা প্রতারিত ভুক্তভোগী একজনের কাছ থেকে পাওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করে র‌্যাব-১১। এতে দেখা যায় প্রতারক চক্রটি র‌্যাব সদর দপ্তরের বিভিন্ন পদের সিলমোহর ব্যবহার করে নিজেদের তৈরিকরা ভুয়া নোটিশ পাঠায়।

নোটিশনামায় দেওয়া মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা হলে টাকা দিয়ে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি নেওয়ার কথা বলা হয়। অন্যথায় গ্রে ফ তা রের ভয় দেখানো হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৪ আগস্ট দিবাগত রাতে টাকা নেওয়ার সময় র‌্যাব সদস্যরা তাদের হাতেনাতে ধরে ফেলে।

আটক প্রতারকদের জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায়, প্রতারক চক্রের প্রধান আসামি জয়নাল আবেদীন ইতোপূর্বে বিজিবিতে চাকরি করতো। চাকরিরত অবস্থায় সে ২০১৭ সালে বিজিবি থেকে পালিয়ে যায়। পরে তার নেতৃত্বে একটি প্র তা র ক চক্র গঠিত হয়।

সে দীর্ঘদিন ধরে বিজিবিতে চাকরি দেওয়ার নাম করে অনেক লোকজনের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। সুত্র-বাংলা নিউজ ২৪ ডট কম।

হাসপাতালের ছাদের পলেস্তারা খসে রোগী আ হ ত

বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পুরুষ ওয়ার্ডের ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ে আব্দুল মান্নান মীর (৮৪) নামে এক রোগী আ হ ত হয়েছেন।

আজ রোববার দুপুরে ওই কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ডা. বেলফার হোসেন বাংলানিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর আগে গতকাল শনিবার দিনগত রাতে এ ঘটনা ঘটে।

মান্নান কচুয়া উপজেলা সদরের বাসিন্দা। তিনি গত বৃহস্পতিবার শ্বাস কষ্ট জনিত সমস্যা নিয়ে হাসপাতালটিতে ভর্তি হয়েছিলেন। ডা. বেলফার হোসেন জানান, শনিবার দিনগত রাতে মান্নান তার নির্ধারিত শয্যায় ঘুমিয়ে ছিলেন। রাতে হঠাৎ করে তার গায়ের ওপর ছাদের পলেস্তারার কিছু অংশ ভেঙে পড়লে তিনি মাথা ও বুকে আঘাত পান।

খবর পেয়ে তাকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তিনি এখন শ ঙ্কা মুক্ত। হাসপাতালের পুরুষ ও মহিলা দু’টি ওয়ার্ডই ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় বিষয়টি একাধিকবার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

যোগাযোগ করা হলে বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. জিকেএম সামসুজ্জামান বাংলানিউজকে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ভবনটির ব্যবহার বন্ধের সুপারিশ করেছেন স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের প্রকৌশলীরা। ভবনটি যাতে করে আর ব্যবহার না হয়, সে বিষয়ে আমরা কাজ শুরু করেছি।