জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ২ শিশুকে বাঁচালেন পুলিশ কনস্টেবল জাদেজা

117

কোমর সমান উচ্চতায় বন্যার পানি। আশপাশের সবকিছু বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। যতদূর চোখ যায় পানি আর পানি। এ পরিস্থিতিতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেড় কিলোমিটার হেঁটে দুই শিশুকে বাঁচিয়েছেন এক পুলিশ কনস্টেবল।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের গুজরাট রাজ্যের এক গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটেছে। রাজধানী আহমেদাবাদ থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দূরে মোরবি জেলার এক বন্যাকবলিত গ্রাম কল্যাণপুরে এই সাহসিকতা দেখিয়েছেন কনস্টেবল প্রুথবিরাজ সিং জাদেজা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রুথবিরাজের এমন মহৎ কাজের ভিডিওচিত্র ছড়িয়ে পড়েছে। এতে দেখা গেছে, বন্যার পানির প্রবল স্রোত উপেক্ষা করেই নিজের দুই কাঁধে দুই মেয়েশিশুকে বসিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন প্রুথবিরাজ। শিশু দুটিকে নিরাপদ আশ্রয়ে পৌঁছে দিতে কাঁধে বসিয়ে দেড় কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে পাড়ি দেন তিনি।

ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই প্রশংসায় ভাসছেন প্রুথবিরাজ। গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রুপানি নিজে তার অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ভিডিওটি শেয়ার করে প্রুথবিরাজের সাহসিকতা ও দায়িত্বজ্ঞানের প্রশংসা করেছেন।

টুইটে বিজয় রুপানি বলেন, ‘পোশাক পরা পুলিশ সদস্যের দায়িত্বজ্ঞান দেখুন সবাই! পুলিশ কনস্টেবল প্রুথবিরাজ সিং জাদেজা সেই সব সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে একজন, যারা প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও নিষ্ঠা, ত্যাগ ও কঠিন পরিশ্রম দিয়ে নিজেদের দায়িত্ব পালন করেন। তাদের দায়িত্ববোধের প্রশংসা করুন একবার।’

আরেক বিজেপি নেতা মেজর সুরেন্দ্র পুনিয়া টুইট করে বলেছেন, ‘প্রুথবিরাজ জি, আপনার সাহসিকতা ও কর্মনিষ্ঠাকে সম্মান জানাই। ব্যক্তিস্বার্থের আগে দায়িত্বকেই বেছে নিয়েছেন আপনি। আপনার এই নায়কোচিত কাজ দেশজুড়ে আরও অনেককে অনুপ্রাণিত করবে।’

এদিকে সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার ভিভিএস লক্ষ্মণও প্রুথবিরাজের প্রশংসা করেছেন। তিনি লিখেছেন, ‘কী দারুণ ও মন ছুঁয়ে যাওয়া এক ভিডিও! বন্যার পানির মধ্যে দুটি শিশুকে কাঁধে বসিয়ে দেড় কিলোমিটার হেঁটে নিরাপদ জায়গায় পৌঁছে দিয়েছেন প্রুথবিরাজ। তার এই অনবদ্য আত্মত্যাগ ও সাহসিকতাকে টুপি খোলা অভিনন্দন।’

কয়েক দিনের ভারী বর্ষণে ভারতের বেশ কয়েকটি অঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে। বেশ কয়েকটি রাজ্য মিলিয়ে বন্যায় মৃ তের সংখ্যা এরই মধ্যে শতাধিক ছাড়িয়েছে।

দেশটির বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত রোববার পর্যন্ত বন্যার কারণে গুজরাটে ১১ জনের মৃ ত্যু হয়েছে। এছাড়া কেরালাতে মৃ ত্যু হয়েছে ৬৭ জনের। মধ্যপ্রদেশেও ৩২ জনের মৃ ত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

ভারতীয় নৌবাহিনীর জাহাজে আ গুন, নিখোঁজ ১

ভারতীয় নৌবাহিনীর একটি জাহাজে অ গ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার (১২ আগস্ট) সকালে অন্ধ্রপ্রদেশের বিশাখাপত্তনমে এ ঘটনা ঘটে। অ গ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ‌জাহাজের এক ক্রু মেম্বার নিখোঁজ রয়েছেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আ গুন লাগার পরপরই উপকূলরক্ষী বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছে। মালবাহী ওই জাহাজে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছাড়াও ২৯ জন জাহাজের কেবিন ক্রু ম্যান ছিলেন। মালপত্র ও কেবিন ক্রুদের নিয়ে যাওয়ার সময় কোস্টাল জাগুয়ার নামের ওই জাহাজে আ গুন লাগে। এখনও উদ্ধার অভিযান চলছে।

জাহাজটি বিশাখাপত্তনম উপকূলবর্তী সমুদ্রে পৌঁছালে হঠাৎই আ গুন লাগে। প্রচণ্ড শব্দে বি স্ফোরণের সঙ্গে জ্বলে ওঠে জাহাজটি। অ গ্নিকাণ্ডের পরপরই ঝাঁপ দিয়ে প্রাণ বাঁচান ২৮ জন কর্মী। সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় উপকূলরক্ষী বাহিনীর জাহাজ।

জাহাজ থেকে ঝাঁপ দেয়া ব্যক্তিদের উদ্ধার করে উপকূলরক্ষী বাহিনীর সদস্যরা। কিন্তু একজন নিখোঁজ রয়েছেন।

কোথা থেকে কীভাবে আ গুন লেগেছে সে ব্যাপারে কোনো কিছু এখনও জানা যায়নি। অ গ্নিকাণ্ডের কারণ খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সাধারণত এ ধরনের জাহাজকে ‘অফসোর সাপোর্ট ভেসেল’ বলা হয়। জাহাজগুলোর সাহায্যে ছোট বন্দর থেকে মাঝ সমুদ্রে দাঁড়িয়ে থাকা বড় জাহাজে মালপত্র ও যাত্রীদের পাঠানো হয়। এ ঘটনার সময় ওই এলাকায় উপস্থিত ছিল ভারতীয় উপকূল বাহিনীর জাহাজ রানী রাসমণি, যার সাহায্যে উদ্ধার কাজ শুরু হয়।