আল্লাহর জিকির করতে করতে মারা গেছেন রফিকুল ইসলাম !

167

জিকির করতে করতে মা’রা যান – চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে করোনায় মৃ’ত ব্যক্তিদের দা’ফ’ন’কা’রী রফিকুল ইসলামের (৪৮) মৃ’ত্যু হয়েছে। রোববার দুপুরে হাজীগঞ্জ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড ধেররা-বিলওয়াই গ্রামে নিজ বাড়িতে জিকির করতে করতে মা’রা যান। তবে তার কোনো করোনা উপসর্গ ছিল না।

হাজীগঞ্জ উপজেলায় ১১ জন মিলে করোনাকালে লা’শ দা’ফ’ন ও নামাজের জানাজা পড়ানোর ঘোষণা দেন। ওই ১১ জনের মধ্যে রফিকুল ইসলাম একজন ছিলেন। তিনি হাজীগঞ্জ বাজারের আল আকসা টেইলার্সের ‘রফিক ভাই’ বলে পরিচিত।

ওই ১১ জনের ১ জন শিক্ষক শরীফুল হাছান। তিনি বলেন, রোববার সকালে রফিক ভাইয়ের শরীরে অসুস্থতা বোধ করেন। নিজেই ছেলেকে নিয়ে বাজারে এসে কয়েকজনের ঋণের টাকা পরিশোধ করেন। পরে বাসায় গিয়ে জিকির করতে করতে দুপুর ১টায় রফিক ভাই মা’রা যান।

তিনি আরও বলেন, এই মৃ’ত্যু যেন রফিক ভাই নিজেই স্বপ্ন দেখেছেন।

উল্লেখ্য, হাজীগঞ্জ উপজেলায় করোনা ও করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃ’ত প্রায় ১০-১২ জনের দা’ফ’ন কাজে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

করোনার তীব্রতা ৩০ থেকে ৪০ ভাগ কমে গেছে: বিজন কুমার শীল

আ’ক্রা’ন্ত হলেও এদের অধিকাংশই বুঝতে পারেননি যে তারা করোনা ভাইরাসে আ’ক্রা’ন্ত। শনিবার (৩০ মে) রাতে একটি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে ফেসবুক লাইভে এ কথা বলেন করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যের র‌্যাপিড টেস্ট কিট আবিষ্কারক দলের প্রধান ড. বিজন কুমার শীল।

তিনি বলেন, ‘আমার অবজারভেশন যেটা- অনেক মানুষ করোনা ভাইরাসে আ’ক্রা’ন্ত হয়ে সুস্থ হয়ে গেছেন। তারা নিজেরাও জানেন না। আমার ধারণা ৩০-৪০ শতাংশ মানুষ করোনায় আ’ক্রা’ন্ত হয়ে গেছেন, তারা হয়তো জানেনই না। হয়তো তাদের একটু জ্বর হয়েছে, কাশি হয়েছে, দুর্বলতা অনুভব করেছে।

বিজন কুমার শীল বলেন, করোনা কাউকে ছাড়বে না। আপনি যতই লুকিয়ে থাকেন করোনা আপনাকে, আমাকে আ’ক্রা’ন্ত করবে। ইউরোপের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি। ইউরোপে যখন করোনা আ’ক্রা’ন্ত করে তখন তাপমাত্রা কম ছিল এবং বাতাস চলাচলও কম ছিল।